1. masudkhan89@yahoo.com : admin :
  2. masudkhan89@gmail.com : Masud Khan : Masud Khan
  3. news.chardike24@gmail.com : চারদিকে ২৪.কম : রাইসা আক্তার
শুক্রবার, ২৭ মে ২০২২, ০৩:৫৫ পূর্বাহ্ন

রাবিতে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদ্যাপন

  • আপডেট সময়: রবিবার, ২৭ মার্চ, ২০২২
  • ৫ দেখেছেন

রাজশাহী প্রতিনিধি: শনিবার ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস। দিবসটি যথাযোগ্য মর্যাদায় উদ্যাপনের লক্ষ্যে বঙ্গবন্ধু শিক্ষা ও গবেষণা পরিষদ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) শাখার পক্ষ থেকে সকাল আট’টায় শহিদ মিনারে পুস্পস্তবক অর্পণ করা হয়।

পরিষদের সভাপতি প্রফেসর ড. প্রভাষ কুমার কর্মকারের নেতৃত্বে রাবি’র কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে অমর শহিদদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। এরপর সংগঠনের পক্ষ থেকে গণকবর স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করা হয়। সেখানেও শহিদদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

পরিষদের পক্ষ থেকে সকালে কেন্দ্রীয় শহিদ মিনার চত্বরে “শতচিত্রে মুক্তির মহানায়ক”- শিরোনামে শিল্পী প্রনব কুমার সরকারের দিনব্যাপী একক চিত্রপ্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়। সেখানে শিল্পীর রং তুলিতে আঁকা জাতির পিতার ১০১টি শিল্পকর্ম প্রদর্শিত হয়। এর আগে সকাল সাড়ে সাত’টায় রাবি’র উপাচার্য প্রফেসর ড. গোলাম সাব্বির সাত্তার চিত্রপ্রদর্শনীর শুভ উদ্বোধন করেন। রাবি বঙ্গবন্ধু শিক্ষা ও গবেষণা পরিষদের সভাপতি প্রফেসর ড. প্রভাষ কুমার কর্মকারের সভাপতিত্বে এ আয়োজনে বিশেষ অতিথি ছিলেন উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. চৌধুরী মো. জাকারিয়া ও উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. সুলতান-উল-ইসলাম। পরে তাঁরা চিত্রকর্মগুলো ঘুরে দেখেন।

জাতির পিতার আদর্শ বাস্তবায়নের উপর গুরুত্ব আরোপ করে প্রধান অতিথি ব্যতিক্রমী এই সুন্দর উদ্যোগের জন্য রাবি বঙ্গবন্ধু শিক্ষা ও গবেষণা পরিষদকে ধন্যবাদ জানান। স¦াধীনতার পক্ষের যেকোনো সংগঠন বা পরিষদ বাংলাদেশকে চিত্রায়িত করতে চাইলে তার সাথে তিনি থাকবেন বলে জানান। এছাড়াও এই অনন্য আয়োজনের মাধ্যমে বাংলাদেশের স্বাধীনতার ইতিহাস চিত্রায়িত হয়েছে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

সভাপতির বক্তব্যে ড. প্রভাষ কুমার কর্মকার বলেন, ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ প্রথম প্রহরে স্বাধীনতার ঘোষণা প্রদানের মধ্যদিয়ে বঙ্গবন্ধু সমস্ত বাঙালির অন্তরের কামনারই প্রতিফলন ঘটিয়েছিলেন। বাঙালির প্রাণপুরুষ বঙ্গবন্ধু আমাদের অহংকারের ভিন্নমাত্রা যুক্ত করেছেন। তিনি হাজার বছরের বঞ্চনার অবসান ঘটিয়ে সকল বিষাদময়তা থেকে আমাদের মুক্তি দেন। বাঙালির জন্য সার্বভৌম বাংলাদেশের ঠিকানা নির্ধারণ, গর্বের লাল-সবুজের জাতীয় পতাকা এবং ‘আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালোবাসি…’ মনোমুগ্ধকর জাতীয় সংগীতের অংশীজন হওয়ার জন্য আমাদেরকে সুযোগ করে দেন। এসময় তিনি প্রনব কুমার সরকারের এই শিল্পকর্ম জাতীয় ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে প্রশংসিত এবং পুরস্কৃত হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক ড. মো. মোকাররম হোসেন মন্ডলের সঞ্চালনায় এ অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপদেষ্টা প্রফেসর ড. বিধান চন্দ্র দাস, উপদেষ্টা প্রফেসর ড. তানজিমা ইয়াসমিন, সংগঠনের দায়িত্বপ্রাপ্ত সম্পাদকগণ, সদস্যবৃন্দসহ সংশ্লিষ্ট সকলে উপস্থিত ছিলেন।

0Shares

Leave a Reply

Your email address will not be published.

একই বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2021 Chardike24.com
ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট @ ইজি আইটি সল্যুশন